Sunday, June 26, 2022
Google search engine
Homeবিশ্বকরোনার বিধিনিষেধের মধ্যেই দেশে দেশে নববর্ষ উদযাপন

করোনার বিধিনিষেধের মধ্যেই দেশে দেশে নববর্ষ উদযাপন

নতুন বছরের শুরুতে দারুণ সুখবর দিয়েছে করোনার নতুন ধরন অমিক্রন শনাক্ত হওয়া প্রথম দেশ দক্ষিণ আফ্রিকা। সুখবরটি হচ্ছে, সেখানে অমিক্রনে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত কারও মৃত্যু হয়নি। এ খবর পাওয়ার পর থেকেই নতুন আনন্দে বর্ষ উদ্‌যাপন শুরু করে বিশ্বের কয়েকটি দেশ।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, অস্ট্রেলিয়া আতশবাজির মধ্য দিয়ে ২০২২ সালকে স্বাগত জানিয়েছে। দেশটির সিডনির আইকনিক হারবার ব্রিজ ও অপেরা হাউস নতুন বছরের প্রথম প্রহরে আতশবাজি ও আলোর ঝলকানিতে জ্বলজ্বল করে ওঠে। আর এভাবেই ঐতিহ্যবাহী আতশবাজি প্রদর্শনে নতুন বর্ষবরণ ও ২০২১ সালকে বিদায় জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। আনন্দময় নতুন বছরের আশা নিয়ে এসেছে এ উৎসব।

খ্রিষ্টীয় নতুন বছরের প্রথম প্রহরে অস্ট্রেলিয়ার সিডনির আকাশে বর্ণিল আতশবাজি
খ্রিষ্টীয় নতুন বছরের প্রথম প্রহরে অস্ট্রেলিয়ার সিডনির আকাশে বর্ণিল আতশবাজি 

অমিক্রনের কারণে এখনো বিশ্বের অনেক দেশেই সংক্রমণ বাড়ছে। বৃহস্পতিবার এক দিনে বিশ্বে ১০ লাখের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। তাই বিশ্বের পূর্ব থেকে পশ্চিমের অনেক দেশেই জমকালোভাবে নববর্ষের উদযাপন হয়নি। নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডে এবার তাই আতশবাজির প্রদর্শন বন্ধ রাখা হয়েছে। এ বছর লন্ডন, প্যারিস, কুয়ালালামপুরে আতশবাজি বাতিল করা হয়েছে।বিজ্ঞাপন

১৯০৪ সাল থেকে টাইমস স্কয়ারে বর্ষবিদায় ও নতুন বর্ষবরণের অনুষ্ঠান হয়ে আসছে। তবে করোনাভাইরাসের প্রকোপ এড়াতে গত বছর জমায়েত এড়ানোর নির্দেশনা জারি করে মার্কিন রোগনিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র। ৩১ ডিসেম্বর রাতে নিউইয়র্কের টাইমস স্কয়ারে ঘড়ির কাঁটা রাত ১২টায় পৌঁছানোর পরপরই একটি বল ফেলে নববর্ষের সূচনা ঘোষণা করা হয়। আর সে দৃশ্য সরাসরি উপভোগ করেন হাজারো মানুষ। প্রতিবছর সেখানে যে পরিমাণ ভিড় হয়, এবার তার চার ভাগের এক ভাগ মানুষ জড়ো হওয়ার সুযোগ ছিল।

এদিকে, নতুন বছরের প্রাক্কালে দক্ষিণ আফ্রিকা ঘোষণা দিয়েছে, অমিক্রন ঢেউয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়েনি। দেশটি আকস্মিক রাত্রীকালীন কারফিউ তুলে নিয়ে নতুন বর্ষ পালনের সুযোগ দিয়েছে।

দুবাইয়ে ব্যান্ডপার্টির সঙ্গে নববর্ষ উদযাপন
দুবাইয়ে ব্যান্ডপার্টির সঙ্গে নববর্ষ উদযাপন

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন দেশটির জনগণকে বর্ষবিদায়ের সন্ধ্যা উপভোগ করতে বলেন।

অস্ট্রেলিয়া নতুন বর্ষ উদ্‌যাপনের আনন্দ করলেও এশিয়ার দেশগুলোয় অনুষ্ঠান সীমিত করা হয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ায় মধ্যরাতে ঘণ্টা বাজানোর অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়। দেশটিতে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে দুই সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে। জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা দেশটির জনগণকে মাস্ক পরতে ও অনুষ্ঠান সীমিত করার আহ্বান জানান।

করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়া নিয়ে সতর্ক অবস্থায় রয়েছে চীন। দেশটির বিভিন্ন শহরে নববর্ষের অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় নতুন বর্ষ উদ্‌যাপনের ভিড় এড়াতে ১১টি রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। মালয়েশিয়ায় বড় ধরনের জমায়েত বাতিল করা হয়েছে। পেট্রোনাস টুইন টাওয়ারে আতশবাজিও বাতিল করা হয়েছে। তবে উত্তর কোরিয়া পিয়ংইয়ংয়ে মধ্যরাতে আতশবাজি প্রদর্শন করেছে।বিজ্ঞাপন

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments